news presenter career

সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে ক্যারিয়ার কিভাবে গড়াবেন?

বর্তমানে মার্জিত এবং সম্মানজনক পেশা হিসেবে সংবাদ উপস্থাপনা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অথচ মাত্র কয়েক বছর আগেও এটাকে তেমন গুরুত্বপূর্ণ পেশা হিসেবে দেখা হতো না। আর এখন এই পেশায় নারী পুরুষ সমান ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিশেষ করে নারীদের জন্য বেশ স্বাচ্ছন্দ্যের এই পেশাটি। বর্তমানে টিভিতে চোখ রাখলেই প্রতিটি চ্যানেলে সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে নারীদের বেশি দেখা যায়। আপনার বাচনভঙ্গি যদি সুন্দর হয় তাহলে সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে ক্যারিয়ার গড়া আপনার জন্য বেশ সুবিধাজনক হতে পারে। বর্তমানে আমাদের দেশে অনেক নতুন নতুন টিভি চ্যানেল তৈরি হয়েছে এবং সামনে আরো আসবে তাই এখনই সময় সংবাদ উপস্থাপক হিসাবে ক্যারিয়ার গড়ে তোলার। আপনারা যারা ক্যারিয়ার হিসেবে সংবাদ উপস্থাপনা কে বেছে নিতে চাইছেন তাদের জন্য আজকের এ  আর্টিকেল। একটু সময় নিয়ে পড়লে আশা করি আপনাদের উপকারে আসবে। চলুন তাহলে দেখে নেই সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে ক্যারিয়ার কিভাবে গড়াবেন?

প্রথমেই আসি সংবাদ উপস্থাপনা আসলে কি?

সাধারণ অর্থে উপস্থাপনা হল তথ্যের সুন্দর উপস্থাপন করা, বলা বা পাঠ করা। আমাদের দেশে ১৯৯৯ সাল থেকে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল যাত্রার পর থেকে সংবাদকে প্রথমে নিজে বুঝে পরে অন্যকে বলে বোঝানোর মাধ্যমে কাজটি শুরু করেন সংবাদ উপস্থাপকরা।  বিভিন্ন রাষ্ট্রের মধ্যে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনার স্ক্রিন ও উচ্চারণই হলো আধুনিক সংবাদ উপস্থাপনা। 

সংবাদ উপস্থাপক দের কাজের সুযোগঃ

সংবাদ উপস্থাপনা পেশাটি খুবই প্রতিযোগিতামূলক তারপরও এখানে নিজেকে যোগ্য করে তোলার মাধ্যমে সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে সুনাম লুফে নেয়া যায়। সংবাদ উপস্থাপনার  কাজটি কেউ পার্টটাইম হিসেবে করতে পারে আবার কেউ ফুলটাইম হিসাবে করতে পারে। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতার ছাড়াও সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে কাজ করার জন্য অনেক বেসরকারি টিভি চ্যানেল এবং রেডিও স্টেশন আছে। বর্তমানে বাংলাদেশের বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সংখ্যা ৪৬টি এবং রেডিও চ্যানেলের সংখ্যা প্রায় ১০০ এর কাছাকাছি। এই সব জায়গাতেই রয়েছে কাজের বিশাল সুযোগ। 

সংবাদ উপস্থাপক দের শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ

বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স পড়ুয়া যেকোন তরুণ-তরুণী এই পেশায় আসতে পারে। সংবাদ উপস্থাপনার টেকনিক্যাল বিষয়গুলো জানা খুবই জরুরী। সমকালীন বিশ্ব সম্পর্কেও ধারণা থাকতে হয় যারা সংবাদ সম্পর্কে কৌতূহলী তারা এই পেশায় খুব ভালো করেন। সংবাদ উপস্থাপকদের বাচনভঙ্গি বিশেষ করে উচ্চারণ, শিক্ষাগত যোগ্যতা, উপস্থিত বুদ্ধি এবং সাম্প্রতিক বিষয় সম্পর্কে ধারণা থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ এ পেশার জন্য। সংবাদ উপস্থাপক হতে হলে মনে রাখতে হবে বিভিন্ন মানসিকতার দর্শক আপনাকে দেখছে। আপনার উচ্চারণ যদি ভালো না হয় অথবা কথায় আঞ্চলিক টান থাকে তাহলে পুরো উপস্থাপনায়ই নষ্ট হয়ে যাবে। যেহেতু সংবাদ সরাসরি সম্প্রচার করা হয় সেহেতু অনেক টেকনিক্যাল সমস্যা হতে পারে আবার অনেক ভুলও হতে পারে তখন সংবাদ উপস্থাপকদের উপস্থিত বুদ্ধি বেশ কাজে দেয়। এতে বোঝা যাচ্ছে সংবাদ উপস্থাপকদের উপস্থিত বুদ্ধি থাকা বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি যোগ্যতা। যখন কোন সমস্যা হয় তখন ওই মুহূর্তটা পুরোপুরি নির্ভর করে সংবাদ উপস্থাপকদের উপর। হঠাৎ করে কোন ব্রেকিং নিউজ হতে পারে তখন স্ক্রিপ্ট ছাড়াই খবরটি পড়ে যেতে হবে। 

সংবাদ উপস্থাপনার জন্য প্রস্তুতিঃ

শুদ্ধ উচ্চারণ এবং সুন্দর বাচনভঙ্গি সংবাদ উপস্থাপনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এক্ষেত্রে শুদ্ধ উচ্চারণ রপ্ত করার জন্য টিভি চ্যানেলের সংবাদ উপস্থাপনা মনোযোগ দিয়ে লক্ষ্য করতে হবে। সংবাদ উপস্থাপনার জন্য উপস্থিত বুদ্ধি থাকা, সময় ও দিবস সম্পর্কে জ্ঞান থাকা এবং সাধারন জ্ঞানে পারদর্শী হতে হবে। সংবাদ পাঠ ও সাংবাদিকতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়ার জন্য কিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বাংলাদেশ গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট(নিমকো) সরকারি পর্যায়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। বেসরকারি পর্যায়ে রয়েছে বিইজেইএম, জবস এ ওয়ান সহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান নিয়মিত টেলিভিশন সাংবাদিকতায় প্রশিক্ষণ কোর্স পরিচালনা করে আসছে। এগুলো থেকেও সংবাদ উপস্থাপনার জন্য কোর্স করে প্রস্তুতি নেয়া যেতে পারে। 

কাজের ধরনঃ

খবর পড়ার আগে একজন সংবাদ উপস্থাপককে তিন ঘণ্টা আগে রিপোর্টিং করতে হয় অর্থাৎ খবর শুরু হওয়ার তিন ঘন্টা আগে তাদের অফিসে আসতে হয়। সংবাদ উপস্থাপক বা নিউজ প্রেজেন্টার এর কাজ দুটি ক্ষেত্রে ভাগ হয়ে থাকে। প্রথমটি হলো ডেস্কজব এবং অন্যটি রিপোর্টিং। একজন সংবাদ উপস্থাপক তার কাছে জমাকৃত খবর নিয়ে কি ধরনের রিপোর্ট বানাবেন সেটা পুরোপুরি তার ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল। তবে সাধারণত উপরের পদের কারো একটি সাধারণ নির্দেশনা দেওয়া থাকে যাতে রিপোর্টের কাঠামো ঠিক থাকে। রিপোর্টিং এর ক্ষেত্রে খবর কিভাবে টেলিভিশনে সম্প্রচার করা হবে তা ঠিক করে দিতে হয়। অন্যদিকে ডেস্কে কাজের ক্ষেত্রে নিউজ উপস্থাপনার জন্য একটি স্ক্রিপ্ট বানাতে হয়। স্ক্রিপ্টের জন্য  প্রেজেন্টারের কাছে যেসব খবর জমা করা হয়, সেগুলো সাজাতে হয়। উপস্থাপনার সময় উপস্থাপক যা বলতে চায় তা আগে থেকে ঠিক করে রাখা এবং স্ক্রিপ্ট এ অবশ্যই লিখে রাখতে হয়। উপস্থাপনার সময় সামনের স্ক্রিনে পুরো স্ক্রিপ্টের লেখা উঠতে থাকে যা দেখে নিউজ উপস্থাপনা করা হয়। এছাড়া ডেস্ক জবের ক্ষেত্রে যেসব খবর ঠিকমতো সাজিয়ে পাঠানো হয় না একটু বিক্ষিপ্ত থাকে সে সব খবর গুছিয়ে আনা এবং তা স্ক্রিপ্ট এ লেখা একজন সংবাদ উপস্থাপকের কাজের মধ্যে পড়ে। সংবাদ উপস্থাপকের গুরুত্বপূর্ণ একটি দায়িত্ব হল খবর থেকে এমন নিউজ স্টরি বানানো যা দর্শকদের জন্য সহজবোধ্য ও মর্মস্পর্শী হয়। 

সংবাদ উপস্থাপনার কৌশলঃ

সংবাদ উপস্থাপনার কৌশল শিখতে হলে প্রচুর বই পড়ে নিজের জ্ঞানকে সমৃদ্ধ করতে হবে।  সংবাদ উপস্থাপকের কথাবার্তা এবং আচার-আচরণ যাতে দর্শক বুঝতে পারে। প্রতি মুহূর্তে আধুনিক হতে হবে। কোন শব্দ জোরে পড়তে হবে এবং কোনটিতে যতিচিহ্নের ব্যবহার কিভাবে করতে হবে এ সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে সংবাদ উপস্থাপন করতে হবে। শুদ্ধ বাংলা উচ্চারণের পাশাপাশি ইংরেজি শব্দ উচ্চারণের ক্ষেত্রেও সমান দক্ষতা থাকতে  হবে।

সংবাদ উপস্থাপনার জন্য পোশাক ও মেকআপঃ

সংবাদ পাঠের একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো সংবাদ উপস্থাপকের সাজ-পোশাক ও মেকআপ।  একজন সংবাদ উপস্থাপক কে অবশ্যই মার্জিত পোশাক বেছে নিতে হবে। এককথায় বলা যায় সাজ পোশাকে শালীনতা থাকা খুবই জরুরী। বিশেষ বিশেষ দিনগুলোতে অফিস থেকে ড্রেসকোড ঠিক করে দেওয়া হয়, যেমন কোন শোক দিবসে সাদা কালো পোশাক পরতে হয় এছাড়া অন্য দিনগুলোতে সংবাদ উপস্থাপককে নিজেরই নিজের সাজ পোশাক বেছে নিতে হয়। সেক্ষেত্রে অবশ্যই উপস্থাপকের রুচি মানসম্মত না হলে দর্শকদের কাছে বিষয়টি দৃষ্টিকটু হতে পারে। সংবাদ উপস্থাপকদের আরেকটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হয় সেটি হল স্টেশনের সিগনেচার কালারের সাথে সামঞ্জস্য রেখে পোশাক নির্ধারণ করতে হয়।

খবর পাঠ শেষে কাজঃ

খবর পড়া শেষ হয়ে গেলে সংবাদ উপস্থাপকদের রেকর্ড করা পুরো খবরটি একবার দেখে নিতে বলা হয় যাতে ভুলগুলো ধরা পড়ে এবং পরে সেগুলো শোধরানো যায়।

এ পেশায় ক্যারিয়ার সম্ভাবনা কেমন? 

এ পেশায় ক্যারিয়ার সম্ভাবনা বেশ ভালো। পদোন্নতির মাধ্যমে একজন সংবাদ উপস্থাপক বা নিউজ অ্যাঙ্কর সর্বোচ্চ এডিটর পদে নিয়োগ পেতে পারেন। এক্ষেত্রে বিষয়টি প্রতিষ্ঠান সাপেক্ষ। একেক প্রতিষ্ঠানে একেক রকমের নিয়ম থাকতে পারে। 

সংবাদ উপস্থাপকদের বেতনঃ

সংবাদ উপস্থাপকের স্যালারি কেমন হয় তা নিয়ে অনেক গুজব রয়েছে। যাই হোক শুরুতে লোভনীয় বেতন নাও হতে পারে। চ্যানেল বুঝে মাসে ন্যূনতম ১২ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা বেতন হতে পারে। তবে বিবিসি বা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের নিউজ প্রেজেন্টারদের  বেতনের পরিমাণ এর কয়েক গুণ বেশি। ৬ মাস বা এক বছর পর বেতন বৃদ্ধি পেয়ে ৩০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকার বেশি হতে পারে। অন্যান্য চাকরির মত এক্ষেত্রেও দক্ষতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বেতন কাঠামোর পরিবর্তন হয়।

সবশেষে বলা যায় যে, প্রতিটি মানুষের কর্ম জগত আলাদা আলাদা এবং কাজের ধরন ও আলাদা। সংবাদ উপস্থাপকদের অন্যান্য পেশাজীবীদের মত ৮ ঘন্টা সময় দিতে হয় না। এক্ষেত্রে সংবাদ উপস্থাপন পেশাটি নারীদের জন্য বেশ উপযোগী কারণ ৮ ঘন্টা তাকে পরিবারের বাইরে কাটাতে হয় না। নিউজ প্রেজেন্টার এর কাজ করেও সে তার ব্যক্তিগত জীবন ও পরিবারে সময় দিতে পারে। এর পাশাপাশি চাইলে অন্য পেশায় ও যুক্ত থাকতে পারে। কারণ নারী বলেন আর পুরুষ বলেন কারো জন্য এখানে কোন ধরাবাধা সময় নেই। সপ্তাহে প্রতিদিন অফিসে আসতেও হয় না। তাই এ কাজটি শুধুমাত্র নারীদের জন্য নয় পুরুষদের জন্যও আকর্ষণীয় একটি পেশা।