বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো উচ্চ শিক্ষা অর্জনের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত।দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি বেসরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো উচ্চ শিক্ষা প্রসারে যথেষ্ট ভূমিকা রাখছে। উচ্চশিক্ষার বর্ধিত চাহিদা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে মেটানো সম্ভব না হওয়ার কারণেই এই সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম তত্ত্বাবধান ও মনিটর করে থাকে। তাই, আজকের আয়োজনে থাকছে বাংলাদেশের সেরা কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা, যারা প্রতিনিয়ত উন্নত শিক্ষার স্তর ধরে রাখতে সকল প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। নিচে বাংলাদেশের সেরা কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা বর্ণনা করা হলো।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকাঃ

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ঃ

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের সরকার অনুমোদিত দেশের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি বেসরকারি পর্যায়ের একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটি অনুষদের অধীনে দশটি বিভাগ রয়েছে। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের জন্য নূন্যতম যোগ্যতা হলো এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় অন্তত জিপিএ ৩.৫ থাকতে হয়। ও লেভেল এ পাঁচটি বিষয়ে জিপিএ ২.৫ থাকতে হয় আর এ লেভেল এ দুটি বিষয়ে ২.০ থাকতে হয়। তবে স্যাট ১২০০ অথবা টোফেল ৫৫০ অথবা আইইএলটিএস ৫.৫ স্কোর থাকলে সরাসরি ভর্তির সুযোগ দেয়া হয়। এখানে পড়াশুনা ও ফলাফলের জন্য আর্থিক ছাড় দেয়া হয়।

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ঃ

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। ২০০১ সালে বাংলাদেশী সমাজকর্মী ফজলে হাসান আবেদ এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়টি উচ্চতর শিক্ষার প্রসারে বিভিন্ন ভাবে কাজ করছে। শিক্ষার্থীরা যাতে গবেষণার মাধ্যমে নতুন নতুন জ্ঞান সৃষ্টিতে নিজেকে যোগ্য করে তুলতে পারে সেজন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রচেষ্টা চলমান। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের জন্য এসএসসি এবং এইচএসসি উভয় পরীক্ষায় জিপিএ ৩.০০ থাকতে হয় এবং ও লেভেল এ পাঁচটি বিষয়ে এবং এ লেভেলে দু’টি বিষয়ে জিপিএ ৩.০০ থাকতে হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভালো ফলাফলের জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা আছে।

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ঃ

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম উপাচার্য। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনটি অনুষদ রয়েছে এবং তেরোটি বিভাগ রয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের জন্য এসএসসি এবং এইচএসসি উভয় পরীক্ষাতে জিপিএ ২.৫০ থাকতে হয় এবং ও লেভেল এর জন্য চারটি বিষয়ে বি গ্রেড এবং তিনটি বিষয়ে সি গ্রেড থাকতে হয় এখানে পড়াশোনার খরচ তুলনামূলকভাবে কম এবং শিক্ষা বৃত্তির ব্যবস্থা আছে।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ঃ

ইন্ডিপেন্ডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামে অবস্থিত একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ক্যাম্পাস ঢাকায় অবস্থিত। এটি ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদনের জন্য শিক্ষার্থীকে এসএসসি এবং এইচএসসি উভয় পরীক্ষাতেই জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হয় এবং ও লেভেলে শিক্ষার্থীদের চারটি বিষয়ে বি গ্রেড এবং তিনটি বিষয়ে সি গ্রেড থাকতে হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মেধার ভিত্তিতে বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে আর্থিক সুবিধা।

আহসানুল্লাহ ইউনিভার্সিটি অফ সাইন্স এন্ড টেকনোলজিঃ

আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়টি ঢাকার আহসানিয়া মিশন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৫ সালে। এ বিশ্ববিদ্যালয়টি মানসম্পন্ন বেসরকারি বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে একটি। আহসানুল্লাহর ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নের ধরন এবং ভর্তি পরীক্ষার প্রতিযোগিতা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মত। প্রতিবছর দুইবার ভর্তি পরীক্ষা হয়ে থাকে। ফল সেমিস্টারের ভর্তি পরীক্ষা হয় সেপ্টেম্বর এ এবং স্প্রিং সেমিস্টারের ভর্তি পরীক্ষা হয় মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শতকরা ৫ ভাগ শিক্ষার্থী বিনা বেতনে পড়াশুনার সুযোগ পায়। সেমিস্টার পরীক্ষার ফলাফলের উপর ভিত্তি করে এই সুবিধা দেয়া হয় এছাড়া আর্থিকভাবে অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের কল্যাণ তহবিল থেকে সাহায্য করা হয়।

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশঃ

এই বিদ্যালয়টি ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি অনুষদের অধীনে মোট পনেরোটি বিভাগ রয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ও রয়েছে শিক্ষাবৃত্তির সুবিধা। বিশ্ববিদ্যালয়টি ঢাকার কুড়িলে প্রায় ৩০০ একর জমির উপর অবস্থিত। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনার মান বেশ উন্নত।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিঃ

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের একটি উচ্চমানসম্পন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ২০০২ সালের ২৪ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়। মানসম্মত শিক্ষার জন্য জাতিসংঘের সাথে চুক্তিবদ্ধ এ বিশ্ববিদ্যালয়টি। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটির সদস্য। বর্তমানে তিনটি ক্যাম্পাস আছে। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ৫টি অনুষদের অধীনে ২৩টি বিভাগ চালু আছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে বছরে তিনবার ভর্তি কার্যক্রম হয়ে থাকে। স্প্রিং, সামার এবং ফল সেমিস্টারে। ধানমন্ডি ক্যাম্পাসে রয়েছে ৬ তলা বিশিষ্ট লাইব্রেরী। লেখাপড়ায় উৎসাহিত করতে প্রতি সেমিস্টারে ফলাফলের উপর ১০-৫০ % শিক্ষা বৃত্তি দেয়া হয়। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা লাভ করেছে।

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিঃ

এ বিশ্ববিদ্যালয়টি ইউনাইটেড গ্রুপ ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠা করে। ইউনাইটেড গ্রুপের ২২টি প্রকল্পের মধ্যে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অন্যতম। এ বিশ্ববিদ্যালয়টি গবেষণার জন্য ১ কোটি টাকার তহবিল ঘোষণা করেছে ২০১৬ সালে। ইউআইইউ তে প্রতিবছর ৩ বার শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়ে থাকে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে নূন্যতম জিপিএ ২.৫ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীরা এখানে ভর্তির আবেদন করতে পারে। এছাড়া এখানে রয়েছে শিক্ষাবৃত্তির ব্যবস্থা।

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশঃ

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের একটি স্বনামধন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এর প্রতিষ্ঠাতা কাজী শাহেদ আহমেদ। ২০০২ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি ইউল্যাব নামে পরিচিত। বর্তমানে এখানে আন্ডারগ্র্যাজুয়েট পর্যায়ে পাঁচটি এবং গ্রাজুয়েট পর্যায়ে দুটি সহ মোট সাতটি প্রোগ্রাম চালু আছে। প্রতিটি প্রোগ্রামেই তথ্যপ্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ। এছাড়া শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে নানা সুবিধা।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা – দ্য ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকঃ

এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৯৬ সালের ২৯ জুলাই প্রতিষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয় ফাউন্ডেশন এই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করছে। এই ফাউন্ডেশনের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে মানবিক ও সামাজিক উন্নয়ন। এতে মোট তিনটি ডিপার্টমেন্ট এর অধীনে আঠারটি বিষয়ে পড়াশোনা করা হয়।

ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি চট্টগ্রামঃ

আইআইইউসি বাংলাদেশের সরকার অনুমোদিত একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ১৯৯৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়টির স্থায়ী ক্যাম্পাস চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে অবস্থিত। ক্যাম্পাসটি ৪৭ একর আয়তনের একটি বৃহত্তর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। সুবিশাল এ ক্যাম্পাসে রয়েছে পাঁচটি আবাসিক হল, তিনটি একাডেমিক ভবন, চারটি অনুষদ ভবন, একটি লাইব্রেরী ভবন, সেন্ট্রাল মসজিদ ও অডিটোরিয়াম। এখানে পাঁচটি অনুষদের অধীনে তেরটি বিভাগে পাঠদান কর্মসূচি চালু রয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা – সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটিঃ

সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়কে সেরা আঞ্চলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এটি স্থায়ী ক্যাম্পাস ঢাকা তেজগাঁও এ। এখানে তিনটি অনুষদে বারোটি বিভাগ রয়েছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে।

স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশঃ

উন্নত শিক্ষার লক্ষ্যে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ২০০২ সালে সরকার কর্তৃক অনুমোদিত হয় প্রতিষ্ঠিত হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি ক্যাম্পাস রয়েছে, একটি সিদ্ধেশ্বরী এবং অপরটি ধানমণ্ডিতে। স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫টি অনুষদ ও ১৪টি বিভাগ রয়েছে।

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজিঃ

এটি বাংলাদেশের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০৩ সালে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক স্বীকৃত নর্থ আমেরিকা ইউনিভার্সিটির পাঠদান পদ্ধতি এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুসরণ করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয় ঢাকা কমার্স কলেজ কর্তৃক এবং এটি পরিচালিত হয় ঢাকা কমার্স কলেজের ট্রাস্টি বোর্ড, প্রিন্সিপাল এবং চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য গভর্নিং বডি দ্বারা। এখানে তিনটি সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়। গরীব এবং মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে কর্মমুখী শিক্ষাদান করা হয় এবং ব্যবহারিক শিক্ষাদানের উপর বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি অনুষদে বারোটি বিভাগ আছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা –  ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিঃ

বাংলাদেশের একটি উল্লেখযোগ্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি। এই বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরু করে ২০০৩ সালে। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এই বিশ্ববিদ্যালয়টি উন্নত শিক্ষার মানের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এখানে রয়েছে উন্নত লাইব্রেরী, ক্লাসরুম, ক্যারিয়ার সার্ভিস, কাউন্সেলিং অফিস ইন্টারনেট সুবিধাসহ উচ্চশিক্ষার জন্য নানা উপকরণ। এখানে মোট চারটি অনুষদ আছে, মোট তিনটি সেমিস্টারে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। ফলাফলের উপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীরা এখানে বৃত্তি পেয়ে থাকে। একজন শিক্ষার্থীকে আধুনিক শিক্ষা দিয়ে গড়ে তোলার জন্য সকল প্রচেষ্টা এই বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা – নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশঃ

নর্দান ইউনিভার্সিটির প্রথম সারির ইউনিভার্সিটি গুলোর মধ্যে একটি। এটি ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। সুযোগ্য ও দক্ষ শিক্ষার্থী তৈরীর ক্ষেত্রে অনবদ্য ভূমিকা রেখে চলেছে নর্দান ইউনিভার্সিটি। বিশ্বমানের শিক্ষা প্রদান করার লক্ষ্যে বিশ্বের বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে ইন্টারন্যাশনাল ফ্রানচাইজ কোলাবরেশন গড়ে তুলেছে এ প্রতিষ্ঠানটি আন্তর্জাতিক গবেষণা ও শিক্ষা উন্নয়নের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫টি অনুষদের ১০টি বিভাগ রয়েছে যেখানে ১৭ টি কোর্স এ শিক্ষার্থীরা পড়াশুনা করছে।

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজিঃ

এ বিশ্ববিদ্যালয়টি আন্তর্জাতিক ব্যবসায়, কৃষি এবং প্রযুক্তিতে বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে থাইল্যান্ডের অ্যাসাম্পসন ইউনিভার্সিটি অব ব্যাংককের সহযোগিতা চুক্তি রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি অ্যাসোসিয়েশন অব কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটির সদস্য। আইইউবিএটি এর যাত্রা শুরু হয়েছে ১৯৯১ সাল থেকে আইইউবিএটি এর স্থায়ী ক্যাম্পাস ঢাকার উত্তরার ১০ নম্বর সেক্টরে প্রায় ১৭ বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠিত। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬টি অনুষদের অধীনে ৯টি ডিগ্রী দেওয়া হয়। এখানে শিক্ষার্থীদের বৃত্তি এবং শিক্ষা ঋণের মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা – ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্টস অল্টারনেটিভঃ

ইউডার প্রতিষ্ঠাতা মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মুজিব খান। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অনুমতি নিয়ে ইউডা ২০০২ সালে তাঁর যাত্রা শুরু করে। কম খরচে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করা, আধুনিক ও মানসম্মত শিক্ষা লাভের দৃষ্টান্ত ইউডা স্থাপন করেছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা – গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশঃ

গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ দেশের একটি অন্যতম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতামূলক চাকরির বাজারে শিক্ষার্থীদের যোগ্য করে তোলার প্রচেষ্টায় এক অনবদ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এ গ্রিন ইউনিভার্সিটি। গ্রিন ইউনিভার্সিটির গ্রাজুয়েটদের জন্য ইউএসবাংলা এয়ারলাইন্সে নিয়োগের ক্ষেত্রে শতকরা ৩০ ভাগ কোটা সংরক্ষিত আছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস ঢাকার পূর্বাচল আমেরিকান সিটিতে।

মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিঃ

মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি আধুনিক ও উচ্চ শিক্ষার লক্ষ্যে ২০০১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস ঢাকার আশুলিয়ায়। মোট তিনটি বিভাগের আটটি বিষয়ে পাঠদান হয়ে থাকে। মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি গরীব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করে থাকে নিয়মিতভাবে।

সিভি লেখার নিয়ম চাকুরির ইন্টারভিউ এ ডাক পাওয়ার জন্যে

বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত এসব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গুরুত্ব ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জাতীয় উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। তাই আশা করা যায় ভবিষ্যতে দেশে বিশ্বমানের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের চাহিদার প্রসার ঘটবে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকেও নতুন নতুন উদ্ভাবনী গবেষণা প্রকাশ করা হবে যা দেশেরআর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

আপনি চাইলে আমদের ফেসবুকে লাইক দিয়ে সাথে থাকতে পারেন। https://www.facebook.com/Bekarcombd