ইংরেজি রাইটিং স্কিল

ইংরেজি রাইটিং স্কিল বাড়ানোর টিপস

অনেকেই আছে ইংরেজিতে বেশ স্বচ্ছন্দে কথা বলতে পারে কিন্তু লিখতে পারে না। আবার অনেকে বাংলা ভালো লিখতে পারে কিন্তু ইংরেজির ক্ষেত্রে আসলেই আর ইংরেজি দিয়ে কিছু লিখতে পারেন না। আমরা সবাই জানি ইংরেজিতে কথা বলা, ইংরেজিতে লিখতে পারা একেকটা গুন। এগুলো এমন একেকটা গুন যা আপনাকে আপনার আশেপাশের সবার থেকে অনেক উঁচুতে নিয়ে যেতে পারে অবলীলায়। তবে গুণের চর্চা না করলে সেটি বেশিদিন ধরে রাখা যায় না। ইংরেজিতে রাইটিং স্কিল বাড়ানোর জন্যও তাই চর্চা করা প্রয়োজন, তবেই না এর বৃদ্ধি হবে। তাই আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন আজকের আর্টিকেলটি আসলে কি নিয়ে লেখা। হা ঠিক ধরেছেন আজকের আর্টিকেলে ইংরেজিতে রাইটিং স্কিল বাড়ানোর কিছু টিপস শেয়ার করব। যদি আপনি এই টিপসগুলো অনুসরণ করেন তাহলে ইংরেজিতে লেখার হাত খুব দ্রুত ভালো হবে। চলুন কথা না বাড়িয়ে দেখে নেই ইংরেজিতে রাইটিং স্কিল কিভাবে বাড়াবেন তার কার্যকরী কিছু টিপস।

ইংরেজি রাইটিং স্কিল – শব্দভাণ্ডার বাড়াতে হবেঃ

ইংরেজিতে রাইটিং স্কিল বাড়ানোর জন্য শব্দ ভান্ডার বাড়াতেই হবে। শব্দের অর্থ শিখতে হবে। অনেকে বলেন যে শব্দ শিখে কি করব মনেই তো থাকে না। কিছু ভুলে যাবেন এটাই স্বাভাবিক, তাই বলে পড়া থামিয়ে দিয়ে বসে থাকলে চলবে। অবশ্যই না, ভুলে যাওয়ার পরও যদি কিছু মনে থাকে সেটাই লাভ। কারণ শব্দের অর্থ না জানলে আপনি শিখতে পারবেন না। তাই ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং এ ভালো করতে হলে আপনার শব্দভাণ্ডার মজবুত থাকতে হবে। শব্দ শেখার মধ্যেই থাকতে হবে অল্প হোক কিন্তু প্রতিদিন শিখতে হবে।

রাইটিং স্কিল – লেখার মান ভালো রাখতে হবেঃ

ইংরেজিতে রাইটিং স্কিল বাড়াতে আপনাকে লেখার মান ভালো রাখার জন্য সঠিক শব্দের ব্যবহার জানতে হবে। লেখাতে যদি মানসম্মত শব্দ ব্যবহার করতে পারেন তাহলে লেখা পড়তেও ভালো লাগবে। তাই এ ব্যাপারটি লক্ষ্য রাখা প্রয়োজন।

প্রিপজিশন এর ব্যবহার জানতে হবেঃ

ইংরেজি বাক্য লেখার সময় আপনাকে প্রিপজিশন ব্যবহার করতেই হবে। এটা ছাড়া বাক্য দেখতে ভালো লাগে না কিন্তু এটা অনেকেই ভুল করেন। তাই শুদ্ধ বাক্য লিখতে হলে এর ব্যবহার সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে। এজন্য প্রিপজিশনের বাংলা অর্থ ও সাধারণ ব্যবহার জানতে হবে। প্রিপজিশন অবশ্যই বুঝে বুঝে পড়তে হবে এবং বাক্যে এর ব্যবহার করতে হবে তাহলেই আস্তে আস্তে ভুল কমে যাবে।

রাইটিং স্কিল বাড়ানোর জন্য Tense এর ব্যবহার শিখতে হবেঃ

আপনি যদি ইংরেজিতে কিছু লিখতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই এই মহাগুরুকে আগে শিখতে হবে। Tenseএর ব্যবহার না জানলে ইংরেজি লেখা অসম্ভব। বারোটি টেন্স এর সংজ্ঞা, চেনার উপায় আর গঠন প্রণালী ভালো করে জানতে হবে যেন বাক্য দেখেই আপনি বুঝতে পারেন সেটা কোন টেন্স এর আওতায় পড়বে। তাই টেন্স শেখা বাধ্যতামূলক যদি রাইটিং স্কিল আপনি বাড়াতে চান।

ইংরেজি পত্রিকার সাহায্য নিতে হবেঃ

ইংরেজিতে আপনি লিখতে চান আর ইংরেজি পত্রিকা পড়বেন না তা কি হয়। ইংরেজি পত্রিকা পড়ার সময় লেখার স্টাইলটা খেয়াল করতে হবে এবং সাথে শব্দচয়ন গুলো ভালো করে খেয়াল রাখতে হবে। নতুন শব্দগুলো নোট খাতায় লিখে রাখবেন কারণ ইংরেজি পত্রিকার শব্দগুলো অনেক আপডেট থাকে। এতে করে সেগুলো যদি আপনি আপনার লেখনীতে প্রবেশ করাতে পারেন তাহলে আপনার লেখার যথেষ্ট রিডাবিলিটি বেড়ে যাবে। তাই রাইটিং স্কিল এ দক্ষতার জন্য ইংরেজি পত্রিকা অনেক বেশি সাহায্য করে।

রাইটিং অনুশীলন করুনঃ

রাইটিং এ দক্ষতা বাড়ানোর জন্য প্রচুর অনুশীলন করার দরকার হয়। বুঝে বুঝে লিখতে হবে, ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং এর জন্য অনুশীলন ব্যাপক কাজে দেয়। প্রতিদিন কোন একটা টপিক ধরে এক পৃষ্ঠা করে লিখবেন। প্রথমদিকে সহজ সহজ টপিক নিয়ে লিখবেন। আমরা স্কুলের জন্য যেসব বিষয়ে প্যারাগ্রাফ লিখতাম সেসব বিষয় নিয়েও লিখতে পারেন কারণ এগুলো তুলনামূলক সহজ। তারপর ধীরে ধীরে কঠিন বিষয়ে লেখা কোন ব্যাপারই হবে না। তথ্য ভিত্তিক লেখার অভ্যাস করতে হবে, মানে আপনার লেখাটা যেন কেউ পড়ে সন্তুষ্ট হতে পারে, রিডার আপনার লেখা পড়ে যেন লাভবান হতে পারে। তাই বেশি বেশি অনুশীলনের কোন বিকল্প নাই।

গ্রামারে উন্নতির জন্য অনলাইন রিসোর্স ব্যবহার করুনঃ

ইংরেজিতে ভালো লেখার জন্য Grammarly, Grammar check অথবা Gramarbook.com ব্যাপক ভাবে সহায়তা করে। এগুলো হচ্ছে অত্যন্ত কার্যকর গ্রামার এবং স্পেলিং চেকার। এগুলো ব্যবহার করে ইংরেজিতে লেখা এখন অনেক সহজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা শুধু আপনার ভুলেই ধরিয়ে দিবে না বরং আপনাকে স্পষ্ট দেখিয়ে দিবে যে আপনার ভুল ঠিক কোথায় হচ্ছে। এর ফলে আপনার ভুলগুলো ঠিক হয়ে যাবে এবং একই ভুলের পুনরাবৃত্তি হবে না। তাই গ্রামারে উন্নতির জন্য এগুলো ব্যবহার করতে শেখা প্রয়োজন।

সঠিক বানান ও উচ্চারণের দিকে খেয়াল রাখতে হবেঃ

লেখাকে ভালো করতে হলে সঠিক বানানও উচ্চারণের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। আপনার লেখাতে যদি বানান ভুল থাকে তাহলে লেখাটা পড়তে ভালো লাগবে না। এক্ষেত্রে শব্দ পড়ার সময় ভেঙ্গে ভেঙ্গে উচ্চারণ করুন এতে করে আপনার উচ্চারণের যেমন সুবিধা হবে তেমনি জলদি বানানও আয়ত্তে আসবে। ইংরেজিতে ভালো লিখতে হলে বানান ঠিক মত হওয়া জরুরী।

Idioms and Phrasesএর ব্যবহারঃ

রাইটিং স্কিল ভালো করতে হলে আপনাকে অবশ্যই Idioms and phrase এর দিকে খেয়াল রাখতে হবে। এগুলো লেখাতে ব্যবহার করলে লেখার সৌন্দর্য অনেক বেড়ে যায়। যেমন- সে একদম শেষ মুহূর্তে এসে পৌছাল। এর ইংরেজি করতে গেলে সাধারনত আমরা শেষ মুহূর্ত বলতে লিখতে পারি Last moment কিন্তু যদি না লিখে আমরা লিখি eleventh hour এই phrase ব্যবহার করি তাহলে বাক্যটি অনেক সুন্দর হবে। তাহলে পুরটা এরকম যে He reached at the eleventh hour তাহলে বুঝতেই পারছেন Idioms and Phrase ব্যবহারের সুবিধা কত? এগুলো ব্যবহার করলে বাক্য কতটা সুন্দর হতে পারে। তাই এর যথাযথ ব্যবহার রাইটিং স্কিল বাড়ানোর জন্য শিখতে হবে।

পছন্দের বিষয়ে সব কিছু করুন ইংরেজিতেঃ

আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি কোন কিছু আনন্দ নিয়ে শিখলে সেটি বেশি দিন স্থায়ী হয়। আপনার পছন্দের বিষয় নিয়ে যদি আপনি কোন কিছু লেখেন তাহলে সেটা ভুল কমই হবে। যেমন আপনি সিনেমা দেখতে খুব ভালোবাসেন তাহলে এটি আপনার রাইটিং স্কিল প্রাক্টিস এর বিষয়ে নিয়ে আসুন। ভাবছেন কি করে নিয়ে আসবেন? আপনার পছন্দের একটা সিনেমা নিয়ে ইংরেজিতে একটা রিভিউ লিখে ফেলেন। এভাবে যতবার আপনি সিনেমা দেখবেন ঠিক ততবার একটা করে রিভিউ লিখবেন ইংরেজিতে। যা কিছু বলার আছে সবকিছু ইংরেজিতে লিখুন। এভাবে লিখতে লিখতে আপনার রাইটিং স্কিল উন্নত না হয়ে কি বসে থাকবে?

ফেসবুকে অনুশীলন করুনঃ

আমি এর আগের একটা আর্টিকেলে ফেসবুকে অনুশীলনের কথা বলেছিলাম। এবারও তাই বলছি। ফেসবুকে আমরা প্রতিদিনই কত কিছুই শেয়ার করি আর যদি সেগুলো ইংরেজিতে করি তাহলে লাভটা তো আমাদেরই হবে তাই না। আপনার ফেসবুক স্ট্যাটাস, ছবির ক্যাপশনগুলো ইংরেজিতে লিখুন। এভাবে ইংরেজি লেখার প্রয়াস আপনাকে বিভিন্ন উপায়ে বাক্য গঠন করতে শিখাবে। এছাড়াও আপনি ফেসবুকে গল্প লেখতে পারেন, কোন কোন বিষয় নিয়ে নিজের মতামত ইংরেজিতে লিখতে পারেন। নিঃসন্দেহে আপনার রাইটিং স্কিল সমৃদ্ধ হতে বাধ্য।

পরিশেষে, ইংরেজিতে লেখার দক্ষতাটাকে আপনি একটা লম্বা জার্নি হিসেবে গ্রহণ করুন। আগ্রহ তৈরি করুন নিজের মনে সেই সাথে উপরে বর্ণিত টিপসগুলো ফলো করুন। কারণ আপনি যদি ইংরেজি লেখাতে দক্ষ হন তাহলে এটি আপনার সারাজীবনে কাজে দিবে। ভুল হলে পিছিয়ে না থেকে দ্বিগুণ উদ্যমে আবার শুরু করুন, দেখবেন অনুশীলন করতে অনেক সুবিধা হবে। ইংরেজি লেখাটাকে একটা অভ্যাসে পরিণত করুন।